Image default
ফ্যাশনবিশেষ সংবাদসিলেট

শমশেরনগর হাসপাতাল প্রতিষ্ঠার সাথে যুক্ত হলেন লণ্ডনের সেলিব্রিটি শেফ আতিকুর রহমান।

শেফ আতিকুর রহমান

“The best way to win the heart is by stomach “

মানে রসনা তৃপ্তিই হৃদয় জয় করার সেরা উপায়।তার যাদুময় হাতের রান্না কেবল বিলেতে বাঙালী, ভারতীয় এমনকি স্থানীয় জনগোষ্ঠীর মনই জয় করেনি তাকেও এনে দিয়েছে দিগন্ত জোড়া খ্যাতি। এনটিভি ইউকে’র তার রান্নার অনুষ্ঠানটি এত জনপ্রিয়তা পায় যে তার সুখ্যাতি ছড়িয়ে পড়ে আটলান্টিকের দুই পারে এমনকি বাংলাদেশেও। 

গড গিফটেড প্রতিভা, মধুর ব্যবহার আর ভুবন ভোলানো হাসি আতিকুর রহমানকে কেবল খ্যাতির শিখরেই নিয়ে যায়নি সাথে বাংলাদেশকেও তুলে ধরেছে পশ্চিমা দুনিয়ার সামনে। তিনি যে কেবল নিজেকে উপরে তুলে এনেছেন তাই নয়, তরুণ প্রজন্মকেও উৎসাহিত করে চলেছেন বিভিন্ন কুকিং প্রতিযোগিতার মাধ্যমে। 

আতিকুর রহমানের সবচেয়ে বড় দিক বিলেতে বাঙালী কমিউনিটির সাথে ঘনিষ্ঠ যোগাযোগ। কমিউনিটির সুখে দুঃখে তিনি সবসময় পাশে থাকেন। তাইতো বিলেতে বাঙালী কমিউনিটির সকল কর্মকাণ্ডের সাথে তিনি যেমন এক আইকন হিসেবে যুক্ত থাকেন তেমনি তার গ্রামবাংলা রেষ্টুরেন্ট যেন লণ্ডন শহরে বাংলাদেশেরই প্রতিকৃতি। তার তুমুল জনপ্রিয়তার কারণ সম্পর্কে শিল্পী সেলিম চৌধুরী বলেন, ” বেশীর ভাগ বাঙালী রেষ্টুরেন্ট রান্নায় ফিউশন ব্যবহার করেন, বিপরীতে আতিকুর রহমানের রেসিপি আক্ষরিক অর্থে অথেনটিক বাংলাদেশী। তাই গ্রাম বাংলা  রেষ্টুরেন্টের আর শেফ আতিকুর রহমানের এতো জনপ্রিয়তা “। তার ‘Atik’s Recipe ‘র সাথে পরিচয় নেই এমন বাঙালী বিলেতে বিরল। 

শমশেরনগর হাসপাতালের সাথে নিজেকে যুক্ত করার ঘোষণা দিয়ে আমাদের আনন্দে ভাসালেন বৃটেনের স্বনামধন্য সেলিব্রিটি শেফ জনাব আতিকুর রহমান। এর ফলে বিলেতে শমশেরনগর হাসপাতালের কার্যক্রম এক নতুন মাত্রা ও গতি পেলো। আতিকুর রহমান বহুবিধ সামাজিক ও জনহিতকর কাজের সাথে যুক্ত। তার দানে, অনুদানে পুষ্ট বাংলাদেশের  বহু প্রতিষ্ঠান ও বিপুল সংখ্যক মানুষ। শমশেরনগর হাসপাতাল প্রতিষ্ঠার কথা শুনে তিনি নিজেই আগ্রহী হন। হাসপাতাল বাস্তবায়ন আহবায়ক কমিটি, ইউকে’র আহবায়ক ও আন্তর্জাতিক সমন্বয়ক ময়নুল ইসলাম খানের মাধ্যমে তার সাথে যোগাযোগ প্রতিষ্ঠিত হয়। 

হাসপাতাল বাস্তবায়ন কমিটির আহবায়ক জনাব সেলিম চৌধুরীর সভাপতিত্বে ভার্চুয়াল মিটিংয়ে তিনি প্রাথমিকভাবে তার পিতা শফিকুর রহমানের নামে টা-১,০০,০০০/- (এক লক্ষ টাকা)  প্রদানের ঘোষণা করেন। এছাড়া পরিচালন তহবিলেও তিনি অনুদান প্রদানের ঘোষণা করেন। তিনি বলেন, ” আমাদের জীবন ক্ষণস্থায়ী। যদি মানুষের জন্য কিছু করার এই সুযোগ আমরা গ্রহণ করি তাহলে এই উসিলায় হয়তো আল্লাহর ক্ষমা পেয়ে যাবো কে জানে। ” তিনি সাংগঠনিকভাবেও সর্বাত্মক সহযোগিতার আশ্বাস প্রদান করেন। 

ভার্চুয়াল মিটিংয়ে আরো যারা যুক্ত ছিলেন – হাসপাতাল বাস্তবায়ন কমিটির যুগ্ম আহবায়ক মুজিবুর রহমান রঞ্জু ও অধ্যাপক আব্দুস সালাম, সদস্য সচিব শামছুল হক মিন্টু, ইউকে কমিটির আহবায়ক  ময়নুল ইসলাম খান, যুগ্ম আহবায়ক ও অর্থ সম্পাদক সৈয়দ সুহেল আহমদ , যুগ্ম আহবায়ক তরিকুর রশীদ চৌধুরী, ভূমি দাতা সরওয়ার জামান রানা। 

সভাপতির বক্তব্যে জনাব সেলিম চৌধুরী বলেন, ” আমরা বড় স্বপ্ন নিয়ে যাত্রা শুরু করেছি, জানি না শেষ পর্যন্ত কোথায় গিয়ে পৌঁছুতে পারবো। কিন্তু অর্থাভাবে মানুষের চিকিৎসা না পাওয়া আবার অর্থ থাকার পরও হাতের কাছে চিকিৎসা সেবা না থাকার বেদনা ও ক্ষত নিয়ে বিস্তীর্ণ  এলাকার মানুষ বড় আশায় বুক বেঁধেছে। আপনার মতো মানুষের এই প্রচেষ্টার সাথে যুক্ত হওয়া তাদের সেই আশার পথে ফুল ছড়াচ্ছে। ইনশাআল্লাহ, সকলের সহযোগিতা নিয়ে আমরা কাঙ্খিত লক্ষ্যে পৌঁছুতে পারবো। ” 

মৌলভীবাজার উত্তর মুলাইমের বাসিন্দা জনাব আতিকুর রহমানের মাধ্যমে মৌলভীবাজারের আরো অনেকে এই মহতী কাজে যুক্ত হবেন বলে সভায় আশাবাদ ব্যক্ত করা হয়।

যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী

সাইফুর রহমান কামরান 

পলিসি মেকার শমশেরনগর হাসপাতাল বাস্তবায়ন কমিটি

Related posts

গোয়াইনঘাটে প্রধানমন্ত্রীর ৭৫তম জন্মদিন উদযাপন করলো ৬নং ফতেহপুর ইউনিয়ন যুবলীগ

[email protected]

দক্ষিণ আফ্রিকার করোনার ধরন বাংলাদেশে

[email protected]

গোয়াইনঘাটে ছাত্রদলের কর্মী সম্মেলন

[email protected]

Leave a Comment